Previous
Next

সর্বশেষ

12 November 2019

নিহতদের পরিবারকে ১ লাখ টাকা করে দেওয়া হবেঃ রেলমন্ত্রী

নিহতদের পরিবারকে ১ লাখ টাকা করে দেওয়া হবেঃ রেলমন্ত্রী



স্টাফ রিপোর্টার।।ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ঢাকা অভিমুখী আন্তঃনগর তূর্ণা নিশীথা ও আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে এক লাখ টাকা করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে ট্রেন দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে এ ঘোষণা দেন তিনি।

নূরুল ইসলাম সুজন জানান, দুর্ঘটনায় আহতদের চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে। কেন এ দুর্ঘটনা ঘটল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তিনি জানান, দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ জানতে ইতোমধ‌্যে তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব‌্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোমবার (১১ নভেম্বর) দিবাগত রাত ৩টার দিকে কসবা উপজেলার মন্দবাগ নামক স্থানে তুর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে ১৬ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছেন শতাধিক।

বিজেপি সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক

বিজেপি সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক

ছবিঃ সংগৃহীত

স্টাফ রিপোর্টার।। ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবের সঙ্গে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। খবর যমুনা টিভির।

বৈঠকে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে দু’দেশের সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরো শক্তিশালী হবে বলে মন্তব্য করেন বিজেপি সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব।

বৈঠকে দুদেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে যে শক্তিশালী দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আছে, তা আরো এগিয়ে নিতে আগ্রহী ভারতের প্রধানমন্ত্রী, জানান বিজেপি সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে দু’দেশের জনগণের স্বার্থ বজায় থাকে, সে বিষয় মাথায় রেখেই আলোচনা হয়েছে। মুজিব বর্ষ নিয়ে ভারতের আগ্রহের কথাও জানান রাম মাধব।
বান্দরবানের ঘুমধুম সীমান্তে বিজিবির ২ সদস্য গুলিবিদ্ধ

বান্দরবানের ঘুমধুম সীমান্তে বিজিবির ২ সদস্য গুলিবিদ্ধ



জেলা প্রতিনিধি।। বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় গুলিতে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) দুই সদস্য আহত হয়েছেন।

সোমবার (১১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার ঘুমধুম সীমান্তে এই ঘটনা ঘটে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের বাইশফাড়ি মিয়ানমার সীমান্তের ৩৬ নম্বর সীমান্ত পিলারের রাস্তার মাথা নামক এলাকায় বিজিবি সদস্যদের একটি টহল দল পৌঁছালে চোরাকারবারি চক্রের সদস্যরা বিজিবি টহল টিমের উপর গুলি ছুড়ে।

এ সময় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরাও চোরাকারবারি চক্রের উপরে গুলি ছুড়ে। দু’পক্ষের মধ্যে বেশ কয়েক রাউন্ড গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এসময় চোরাকারবারি চক্রের গুলিতে ২ জন বিজিবি সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়।

আহতরা হলেন- বিজিবি ৩৪ ব্যাটেলিয়নের নিয়ন্ত্রিত বাইশফাড়ি বিজিবি ক্যাম্পের সিপাহী মৃত্যঞ্জয় এবং সিপাহী ফরিদ উদ্দিন। বিজিবি সদস্য দুজনই বাম পায়ের হাঁটুর নিচে গুলিবিদ্ধ হয়।

খবর পেয়ে বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে রামু সিএমএইচ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এই ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

বিজিবি কক্সবাজার রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজেদুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ইয়াবা চালান আসার কথা জানতে পেরে বিজিবি সেখানে অভিযান চালায়। বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে পাচারকারীরা পাহাড়ের ওপর থেকে গুলি ছোড়ে। এ সময় ফরিদ উদ্দিন ও মৃত্যুঞ্জয় পায়ে গুলিবিদ্ধ হন। বিজিবির পাল্টা গুলিতে ইয়াবা পাচারকারীরা পালিয়ে যায়। তাদের ধরতে সীমান্তে অভিযান চালানো হচ্ছে।
ট্রেন দুর্ঘটনায় অন্তত ১৬ জন নিহত, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক জাতির সঙ্গে তামাশাঃ মেজর আখতার

ট্রেন দুর্ঘটনায় অন্তত ১৬ জন নিহত, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক জাতির সঙ্গে তামাশাঃ মেজর আখতার



স্টাফ রিপোর্টার।।ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত ১৬ জন নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী।

সোমবার দিনগত রাত পৌনে ৩টার দিকে কসবার মন্দবাগ নামক স্থানে তূর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।

মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় ঘটনায় গভীর শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তবে শুধু শোক জানিয়ে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ট্রেন দুর্ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মেজর (অব.) মো. আখতারুজ্জামান।

ট্রেন দুর্ঘটনায় রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক জাতির সঙ্গে তামাশা বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে নিজের ফেসবুকে ওয়ালে এক স্ট্যাটাসে এ মন্তব্য করেন মেজর আখতার।

তার স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে দেয়া হলো-

‘শোকের নামে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর প্রহসন!!

সরকার তার নিয়ম অনুযায়ী ঘটনার ঘটার সঙ্গে সঙ্গে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর শোক জানিয়ে দিয়েছে! কিন্তু সব ঘটনা যে এক নয় এবং সব ঘটনার জন্যই রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক জানিয়ে দায় এড়ানোর সুযোগ থাকে না তা চাটুকার সরকারি কর্মচারীরা জানেন না।

ট্রেন দুর্ঘটনায় ১৫ জন নিহত হয়েছেন যার দায়দায়িত্ব রাষ্ট্রের। কারণ আমাদের দেশে ট্রেন চালায় রাষ্ট্র। তাই রেলের সব দায়দায়িত্ব রাষ্ট্রের এবং এই দুর্ঘটনার দায়দায়িত্বও রাষ্ট্রের।

রাষ্ট্রের প্রধান রাষ্ট্রপতি এবং প্রধান নির্বাহী হলেন প্রধানমন্ত্রী। কাজেই এই ট্রেন দুর্ঘটনার দায়দায়িত্ব রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর।

তাদের অধিনস্ত যাদের গাফিলতিতেই এই দুর্ঘটনা ঘটে থাকুক না কেন তার মূল দায়িত্ব কিন্তু স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর এবং রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রীর নিয়োগকর্তা তাই রাষ্ট্রপতিও উনার দায়দায়িত্ব এড়াতে পারেন না।

আমাদের ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস- নিজেদের ব্যর্থতায় দুর্ঘটনা ঘটিয়ে মানুষ মেরে এবং রাষ্ট্রের সম্পদের ক্ষতি করে এখন চটজলদি শোক জানিয়ে জনগণের সঙ্গে তামাশা করছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। ছি, লজ্জা, লজ্জা, লজ্জা।’

11 November 2019

বাবরি মসজিদ রায়ে দেশবাসীর ইচ্ছের প্রতিফলন ঘটেছেঃ মোদি

বাবরি মসজিদ রায়ে দেশবাসীর ইচ্ছের প্রতিফলন ঘটেছেঃ মোদি

ফাইল ছবি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।। ভারতের বহুল আলোচিত অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করেছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। বাবরি মসজিদের জায়গায় রামমন্দির নির্মাণের রায় দিয়েছে আদালত। এছাড়া মসজিদ নির্মাণের জন্য আলাদা জায়গা বরাদ্দ দেয়ার আদেশ দেয়া হয়েছে রায়ে। এই রায়ের সমালোচনা করে মতামত তুলে ধরেছেন অনেকে। আবার এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন কট্টর হিন্দুত্ববাদীরা। আর সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কে নতুন ভারতের সূচনা হিসেবে দেখছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

রায় নিয়ে শনিবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে মোদি বলেন, ‘সবার বিকাশ, সবার বিশ্বাস।সংবিধানের উপর বিশ্বাস রাখা জরুরি। সময় লাগলেও ধৈর্য বজায় রাখা জরুরি। নতুন ভারতে ভয়ের কোনো জায়গা নেই। ৯ নভেম্বর করতারপুর করিডরের উদ্বোধন। ৯ নভেম্বরই অযোধ্যা রায়ও হল। ৯ নভেম্বর বার্লিন প্রাচীর ভাঙা হয়। কয়েক দশকের ইতিহাস জড়িয়েছিল। সুপ্রিম কোর্ট সবপক্ষের কথা শুনেছে। আজকের দিন সোনালি দি। রায়ের দিকে সবাই তাকিয়েছিলেন। বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্যের এখানেই স্বার্থকতা। দেশবাসী ভাল মনেই রায় মেনেছেন। ভারতের গণতন্ত্র মজবুত।’

এসময় তিনি বলেন, ‘আজ এমন এক মামলার রায় হল যার দীর্ঘদিনের ইতিহাস রয়েছে। দেশবাসীর ইচ্ছে ছিল অযোধ্যা মামলার রায় হোক। অবশেষে সেই রায় এসেছে। এতদিন বিশ্ব জানত ভারত সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশ। কিন্তু, আজ বিশ্ব জানতে পারছে গণতন্ত্রের ভিত্তি কতটা শক্তিশালী। এবার নয়া ভারতের সূচনা হবে। নতুন ভারত বিশ্ব জয় করবে। সব কা সাথ-সব কা বিকাশের মাধ্যমেই হবে নতুন ভারতের সূচনা।’