Previous
Next

সর্বশেষ

23 June 2018

নিউইয়র্কে মুসলমানদের ওপর হামলা বেড়েই চলেছে

নিউইয়র্কে মুসলমানদের ওপর হামলা বেড়েই চলেছে


আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, আমেরিকার নিউইয়র্ক সিটিতে ধর্মীয় এবং জাতিগত বিদ্বেষমূলক হামলার ঘটনা উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছেইতিপূর্বে পুলিশ কিংবা স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা অথবা ধর্মীয়/কম্যুনিটিভিত্তিক সংস্থায় অভিযোগ করে কোন প্রতিকার না পাওয়ায় গত বছর ৭১ শতাংশ ভিকটিমই বিচার প্রার্থনায় আগ্রহী হয়নিনিউইয়র্ক সিটির হিউম্যান রাইটস কমিশনের জরিপে এমন ভয়ংকর তথ্য উঠে এসেছেএ জরিপ চালানো হয় ২০১৬ সালের জুলাই থেকে গত বছরের শেষার্ধ পর্যন্তবাংলা, ইংরেজী, আরবী, রাশিয়ান, হিন্দি, উর্দু, যুডিশ-এই ৭ ভাষায় পরিচালিত জরিপে অংশ নেন ৩১০০ জনদক্ষিণ এশিয়ান এবং মধ্যপ্রাচ্যের মুসলমান ছাড়াও শিখ ও জুইশরাও অংশ নেন এতেএই জরিপ রিপোর্ট প্রকাশ উপলক্ষে গত মঙ্গলবার ব্রুকলীনে আরব-আমেরিকান ফ্যামিলি সাপোর্ট সেন্টারে এক অনুষ্ঠান হয়েছে কমিশন অন হিউম্যান রাইটসের পক্ষ থেকেস্বাগত বক্তব্য এবং সামগ্রিক পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে কী করা উচিত তা নিয়ে খোলামেলা মতামত ব্যক্ত করেন কমিশনার কারমেলিন পি মালালিস

জরিপে উঠে এসেছে :
*৩৮.৭% কোন না কোনভাবে হয়রানির শিকার হয়েছেন
* ৮.৮% শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হয়েছেন
* ১৬.৬% ধর্মীয়, বর্ণ অথবা জাতিগত বিদ্বেষের শিকার হয়েছেন কর্মক্ষেত্রে অথবা চাকরির ইন্টারভিউর সময়
* ২৭% নারী হেনস্থার শিকার হন হিজাব পরিহিত অবস্থায় সিটির সাবওয়েতে
* ৮০% জুইশ লাঞ্ছিত হয়েছেন অথবা বিদ্বেষমূলকভাবে সহায়-সম্পদের ওপর হামলা হয়েছে
* ১৯% দক্ষিণ এশিয়ানই কর্মক্ষেত্রে বিমাতাসুলভ আচরণের শিকার হয়েছেন
* ৭১% বলেছেন যে, তারা আক্রান্ত হবার তথ্য পুলিশ কিংবা কম্যুনিটিভিত্তিক সংগঠন অথবা ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে অবহিত করেননিকারণ, এর আগে অভিযোগ করে কোন প্রতিকার দূরের কথা, উল্টো হুমকির শিকার হয়েছেন

*জরিপে অংশ নেয়া শিখ সম্প্রদায়ের অনূর্ধ্ব ৩৫ বছর বয়েসীরা বলেছেন যে তারা আগের চেয়ে দ্বিগুণ হয়রানি-নাজেহাল-লাঞ্ছিত হচ্ছেন

এমন পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে নিউইয়র্ক সিটির এই মানবাধিকার কমিশন সুপারিশ করেছে যে, কম্যুনিটিভিত্তিক সংগঠনগুলোর সমন্বয়ে সক্রিয় একটি নেটওয়ার্ক স্থাপন করতে হবেযার মাধ্যমে ভিকটিমরা বিচার প্রার্থনায় উৎসাহিত হতে পারবেনদুর্বৃত্তদের যদি গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা যায় তাহলে দ্রুত হ্রাস পাবে এমন জঘন্য ঘটনাবলি

বলা হয়, জুইশ ফর র‌্যাসিয়েল এ্যান্ড ইকনোমিক জাস্টিস, সোউটো ইয়েটো সেন্টার ফর আফ্রিকান উইমেন, শিখ কোয়ালিশন, কাউন্সিল অন আমেরিকান ইসলামিক রিলেশন্সর নিউইয়র্ক চ্যাপ্টার, আরব-আমেরিকান এসোসিয়েশন অব নিউইয়র্ক, আরব-আমেরিকান ফ্যামিলি সাপোর্ট সেন্টার, ছায়া-সিডিসি, মানবাধিকার কমিশনের স্টাফকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে নাগরিকের অধিকার সম্পর্কে সচেতন করার জন্যেতৃণমূলে কথা বলতে হবেঅভয় দিতে হবে যে, অবিচার কিংবা বিচারহীনতার সংস্কৃতি দীর্ঘতর হবে যদি ভিকটিমরা সোচ্চার না হনএমনকি সিটির এই মানবাধিকার কমিশনের মাধ্যমেও অভিযোগ করা যাবেঅনলাইন অথবা টেলিফোনেও তথ্য জানানোর সুযোগ রয়েছেনির্ভয়ে যেন সকলে অভিযোগ পেশ করেনপুলিশী এ্যাকশন অবশ্যই দ্রুত শুরু হবে মানবাধিকার কমিশনের মাধ্যমে ঘটনাবলি উপস্থাপন করা হলেএই কমিশনের টেলিফোন নম্বর হচ্ছে ৭১৮-৭২২-৩১৩১

এ সময় জানানো হয়, সিটি, স্টেট এবং ফেডারেল প্রশাসনের অনুদানে পরিচালিত অনেক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা/ মানবাধিকার সংস্থার এটর্নীরাও এসব ব্যাপারে বিস্তারিত সহায়তা দিচ্ছেপুলিশ যদি অভিযোগ আমলে নিতে কালক্ষেপণ করে তাহলে তার বিরুদ্ধেও আইনগত পদক্ষেপের সুযোগ রয়েছেসুতরাং ভিকটিমরা যেন কোনভাবেই অভিযোগ করা থেকে বিরত না হন

নিউইয়র্ক সিটির মানবাধিকার আইন লংঘনকারিকেও সর্বোচ্চ আড়াই লাখ ডলার জরিমানার ব্যবস্থা রয়েছেএই কমিশন সে পদক্ষেপ নেয়ার অধিকার রাখেতবে ভিকটিমরা এগিয়ে না এলে কোন আইনই প্রয়োগ করা সম্ভব হবে না

কমিশনার কারমেলিন তার বক্তব্যে বলেন, কোথায় তারা নামাজ/পূজা/প্রার্থনা করেন কিংবা কী তার দৈহিক অবস্থা বা কোত্থেকে তিনি এসেছেন-এ কারণে কেউ নাজেহাল/আক্রান্ত/লাঞ্ছিত হবে-এটি নিউইয়র্ক সিটি কখনো মেনে নেবে নাকাউকেউ বৈষম্যের শিকার হতে দেয় না এই সিটি কিংবা উপরোক্ত কারণে কেউ হয়রানি হবে-সেটিও বরদাশত করে না নিউইয়র্ক সিটিআমরা সর্বশক্তি নিয়োগ করেছি এহেন পরিস্থিতি দমনেজিরো টলারেন্স মনোভাব রয়েছে সিটি প্রশাসনে

কমিশনার বলেন, মুসলমান, শিখ অথবা জুইশদের নিরাপত্তায় বদ্ধপরিকর এই সিটির সকল এজেন্সীকর্মক্ষেত্রে বিমাতাসূলভ আচরণকেও মেনে নেয় না এই প্রশাসনকমিশনার উল্লেখ করেন, জরিপে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী মনবাধিকার কমিশন সোচ্চার হবেসিটির সকল এজেন্সীর সাথে মতবিনিময় করার মধ্য দিয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবেআর এভাবেই সকল মানুষের জন্যে নিরাপদ সিটির ঐতিহ্য সমুন্নত রাখার চেষ্টা করা হবে

এ সময় সিটি মেয়রের ইমিগ্রেশন সম্পর্কিত কমিশনার বিটা মোস্তফি বলেন, বর্ণ, জাতীয়তা, ধর্মীয় কারণে কেউ হয়রানি হবে অথবা কর্মস্থলে বিমাতাসুলভ আচরণের শিকার হবে-এটি কোনভাবেই মেনে নেয়া উচিত নয়এমন পরিস্থিতির অবসানে আমরা কাজ করছি মানবাধিকার কমিশনের সাথেচলতি পথে অথবা কর্মস্থলে কেউ যাতে অযথা হয়রানি না হন-সে চেষ্টা আমরা করে যাচ্ছিচলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার পরিপ্রেক্ষিতে অভিবাসী সমাজ স্বস্তিতে নেই-এটি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে এই জরিপেতাই আমরা কম্যুনিটির শান্তি-স্বস্তি অটুট রাখতে এখন থেকে দ্বিগুণ উৎসাহে কাজ করবোকারণ, এই সিটির দায়িত্ব হচ্ছে নাগরিকের অধিকার ও মর্যাদা সুরক্ষায় সজাগ থাকা

নিউইয়র্ক সিটি মেয়রের কম্যুনিটি এফেয়ার্স ইউনিটের কমিশনার মারকো এ ক্যারিয়ন বলেন, বৈষম্য, হয়রানি, বায়াস, হেইট ক্রাইমের স্থান নয় এই সিটিমেয়র ব্লাসিয়োর প্রশাসন বদ্ধপরিকর কম্যুনিটির সকলের নিরাপত্তা সংরক্ষণ এবং নাগরিকের যে কোন প্রয়োজনে পাশে দাঁড়াতেএধরনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কম্যুনিটি এফেয়ার্স ইউনিটের সকল কর্মকর্তা সার্বক্ষণিকভাবে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন সকল সংস্থার সাথে

এ ধরনের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন নিউইয়র্ক ইমিগ্রেশন কোয়ালিশনের নির্বাহী পরিচালক স্টিভেন চৈতিনি বলেন, হেইট ক্রাইম প্রতিরোধে সকলের সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণে এই জরিপ-প্রতিবেদনের গুরুত্ব অপরিসীম

নিউইয়র্কস্থ জুইশ কম্যুনিটি রিলেশন্স কাউন্সিলের বোর্ড মেম্বার ও কমিশনার যোনাথন গ্রীণস্পান বলেন, ব্রুকলীনের অধিবাসী হিসেবে দুঃখজনক হলেও সত্য যে, এই সিটিতে প্রতিনিয়ত ধর্মীয় ও জাতিগত বিদ্বেষের কারণে জুইশরাও হয়রানি, হেনস্থা এবং সহায়-সম্পদের ক্ষতির শিকার হচ্ছেআজকের এই জরিপ প্রতিবেদনে সিটি প্রশাসনের আন্তরিকতার বহি:প্রকাশ ঘটলো যে, এই সিটিতে কোন ধরনের হেইটক্রাইম অথবা বৈষম্যকে স্থান দেয়া হবে না
উ. কোরিয়া এখনো ‘বড় হুমকিঃ  ট্রাম্প

উ. কোরিয়া এখনো ‘বড় হুমকিঃ ট্রাম্প


আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে পুনরায় নিষেধাজ্ঞা জারি করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, পিয়ংইয়ংয়ের পারমাণবিক অস্ত্রের কারণে দেশটি এখনো বড় হুমকিব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ খবর জানানো হয়

মাত্র ১০ দিন আগে ১৩ জুন ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে কোনো পারমাণবিক হুমকি নেইসিঙ্গাপুরে উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠকের পর এক টুইটে এই মন্তব্য করেছিলেন ট্রাম্পকিন্তু এখন তিনি বলছেন উত্তর কোরিয়া এখনো বড় ধরনের হুমকি

দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে দুটি সামরিক মহড়া স্থগিত করার পর ট্রাম্প এই হুমকির কথা সামনে আনলেনযুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের দাবি, কূটনৈতিক সমঝোতাকে সমর্থন জানাতেই মহড়া স্থগিত করা হয়েছেএর আগে চলতি সপ্তাহে উভয় দেশের আরেকটি বড় ধরনের মহড়া স্থগিত করা হয়েছিল

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০০৮ সাল থেকেই উত্তর কোরিয়া ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র জরুরি অবস্থা জারি রেখেছেএরপর থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টরা এই অবস্থা নিয়মিত জারি এবং উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে গেছেন

গতকাল শুক্রবার ট্রাম্প এই জাতীয় জরুরি অবস্থার মেয়াদ আরও বাড়িয়েছেনযুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসকে এক নোটিশে ট্রাম্প জানান, উত্তর কোরিয়ার সরকারের পদক্ষেপ ও ঝুঁকিপূর্ণ অস্ত্রের কারণে দেশটি যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা, পররাষ্ট্রনীতি ও অর্থনীতির জন্য বড় ধরনের হুমকি

এর আগে গত ১২ জুন সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সঙ্গে ঐতিহাসিক এক বৈঠকের পর দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা চুক্তি সম্পন্ন হয়সেই চুক্তির বিষয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে কোরীয় উপদ্বীপে উষ্কানিমূলক যুদ্ধ যুদ্ধ খেলাবন্ধের ঘোষণা দিয়ে চমক দেন ট্রাম্পতিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের দেশে ফিরিয়ে নিতে চান তিনিআগে এই সামরিক মহড়া সমর্থন করলেও ট্রাম্প এখন সেদিন একে উষ্কানিকমূলকআখ্যা দেন

যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধী দল ডেমোক্র্যাট পার্টির নেতারা হোয়াইট হাউসের এই অবস্থানকে সাংঘর্ষিক বলে দাবি করছেন
যুদ্ধবিচ্ছিন্ন পরিবারগুলোর পুনর্মিলন হচ্ছে দুই কোরিয়ায়

যুদ্ধবিচ্ছিন্ন পরিবারগুলোর পুনর্মিলন হচ্ছে দুই কোরিয়ায়


আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ কোরীয় যুদ্ধে ছয় দশকেরও বেশি সময় আগে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়া পরিবারগুলোর সদস্যদের পুনর্মিলন করাতে সম্মতি প্রকাশ করেছে দুই কোরিয়াআগামী ২০ আগস্ট থেকে ২৬ আগস্ট পর্যন্ত পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া

গতকাল শুক্রবার উত্তর কোরিয়ার পর্যটন কেন্দ্র মাউন্ট কুমগাংগে এক যৌথ বিবৃতির বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘ইতিমধ্যেই দুই কোরিয়া থেকে ১০০ জনকে বাছাই করে পুনর্মিলনের সুযোগ দেওয়া হবে

এর আগে ২০১৫ সালে অক্টোবরে সর্বশেষ দুই কোরিয়ার বিচ্ছিন্ন কিছু পরিবারের সদস্যদের একে অপরের সঙ্গে দেখা হয়েছিলদক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে-ইন ও উত্তরের শীর্ষ নেতা কিম জং উনের মধ্যে দুই দফা বৈঠকের ধারাবাহিকতায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া পরিবারের সদস্যদের একত্রিত করতে আলোচনার পরিকল্পনা অবশেষে বাস্তবায়ন করা হবে

যুদ্ধের সময় বিচ্ছিন্ন পরিবারগুলোর অনেক সদস্যের বয়স ৮০ পেরিয়ে যাওয়ায় তাদের পুনর্মিলনীকে মানবিক কাজ ও মানবাধিকার হিসেবে দেখে আসছে দক্ষিণ কোরিয়াএদিকে বিচ্ছিন্ন পরিবারগুলোর সদস্যদের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্স ও ডাক যোগাযোগ পুনরায় শুরুরও প্রস্তাব দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া
জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা অক্টোবরেঃ ইসি সচিব

জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা অক্টোবরেঃ ইসি সচিব


স্বদেশবার্তা ডেস্কঃ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল আগামী অক্টোবরের শেষের দিকে ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ

টাঙ্গাইলের বাসাইল পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে আজ শনিবার দুপুরে আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সচিব এ কথা বলেন

হেলালুউদ্দীন বলেন, ‘বাসাইল পৌরসভা একটি ছোট পৌরসভা হলেও নির্বাচন কমিশন প্রত্যেকটি নির্বাচনকে গুরুত্ব দিয়ে থাকেসেই দৃষ্টিকোণ থেকে বাসাইল পৌরসভাসহ সিটি নির্বাচনগুলো সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, শান্তিপূর্ণ ও গ্রহণযোগ্য করার লক্ষে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় করা হয়েছেআশা করছি, আগামী ৩০ জুনের নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবেইতিমধ্যে সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে

বাসাইল উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত সভায় টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমীনের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন ইসি সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোখলেছুর রহমান, টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়, র্যা ব-১২-এর সিপিসি-৩ কমান্ডার মেজর রবিউল ইসলাম, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না, বাসাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিচুর রহমান প্রমুখ

বাসাইল পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে তিনজন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৭ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১৪ জন প্রতিদ্বন্ধিতা করছেনপৌরসভার ১০টি কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ১৬ হাজার ৪০০এর মধ্যে নারী ভোটার ৮ হাজার ৪৭৫ জন এবং পুরুষ ভোটার ৭ হাজার ৯২৫জন২০১৩ সালে এই পৌরসভায় প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়
হিজড়া বানাতে দুই যুবকের পুরুষাঙ্গ কর্তন

হিজড়া বানাতে দুই যুবকের পুরুষাঙ্গ কর্তন


স্বদেশবার্তা ডেস্কঃ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় অর্থের লোভ দেখিয়ে দিনমজুর দুই যুবকের পুরুষাঙ্গ কর্তন করে হিজড়ায় রূপান্তর করা হয়েছেঘটনাটি এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে

অভিযোগে জানা গেছে, ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ শহরের নিশ্চিন্তপুর এলাকায় কেসমতের ছেলে শরিফুল ইসলাম (২২) ও ভোলপাড়া গ্রামের কাজলকে (২০) অর্থের লোভ দেখায় হিজড়া সর্দার মনিরাতাদের খাবারের সঙ্গে অচেতন হওয়ার ওষুধ দিয়ে একটি প্রাইভেটকারে করে যশোরের একটি বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়রাতে অপারেশন করে পুরুষাঙ্গ কর্তন করা হয়

পরের দিন শরিফুল ও কাজলকে মাগুরার হিজড়া সর্দার মনিরা আত্মীয় বাড়িতে আটকে রেখে নাক, কান ছিদ্র করে হাতে চুড়ি পড়িয়ে হিজড়া বানায়পরে পরিবারের সদস্যদের চাপের মুখে গত ১৮ জুন সকালে দুই যুবককে কালীগঞ্জে তাদের পিতামাতার কাছে ফিরিয়ে দেন হিজড়া সর্দার মনিরা

গত বুধবার সন্ধ্যায় শরিফুল ইসলাম অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কালীগঞ্জ থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ সুলতান আহমেদ বলেন, এ ধরনের অপারেশন একটা আইনবিরোধী কাজরোগীকে চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পাঠানো হয়েছে

শরিফুলের মা মনোয়ারা বেগম বলেন, অভিযোগ নিয়ে কালীগঞ্জ থানায় গেলে পুলিশ বিষয়টি আমলে নেয়নিআমি আমার ছেলের জীবন ধ্বংসকারীদের বিচার চাইঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর থেকে হিজড়া মনিরা গা ঢাকা দিয়েছে

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, এখনও এমন কোনও অভিযোগ পাইনিঅভিযোগ পেলে আইনি ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে